প্রকৃত স্বাধীনতা চাই

সত্যিকার অর্থে  প্রত্যক্ষ বা  পরোক্ষভাবে আমরা  এখনো পরাধীন।
স্বাধীনতার প্রকৃত অর্থ  যদি  মুক্তমনে চিন্তা করি তাহলে
এই কথাটার  মৌলিক অর্থ  পরিষ্কারভাবে  বোঝা যাবে।
নাগরিক কবির সেই কবিতাটি বার বার মনে হয়।
“স্বাধীনতা তুমি
রবিঠাকুরের অজর কবিতা, অবিনাশী গান।
স্বাধীনতা তুমি
কাজী নজরুল ঝাঁকড়া চুলের বাবরি দোলানো
মহান পুরুষ, সৃষ্টিসুখের উল্লাসে কাঁপা-
স্বাধীনতা তুমি
শহীদ মিনারে অমর একুশে ফেব্রুয়ারির উজ্জ্বল সভা
স্বাধীনতা তুমি
পতাকা-শোভিত শ্লোগান-মুখর ঝাঁঝালো মিছিল।
স্বাধীনতা তুমি……………………………………….”

নাম মাত্র  স্বাধীনতায় আমরা এই ভূখণ্ডে বসবাস করছি,
এখনো আমাদেরকে সামাজিক,রাজনৈতিক,অর্থনৈতিক,সাংস্কৃতি সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে

এক অদৃশ্য নীরব  অত্যাচার এর জালে ফাঁসিয়ে ফেলে

আমাদের কুঁজো করে রেখেছে ভারত নামের

বন্ধুবেশী শত্রু দেশ।   

আমাদের  নিজেদের মধ্যে কিছু  স্বঘোষিত  ভারত মাতার সন্তান আছে  আছে যারা বলে “ ভারত মুক্তিযুদ্ধে আমাদের অস্ত্র এবং সৈন্য দিয়ে সহায়তা করেছে, আমরা  ভারত মাতার সেই  ঋণ কখনো শোধ করতে পারবো না”

সত্যিই ভারত মাতার ঋণ কখনো শোধ হবার নয়,

চলুন ভারত মাতা আমাদের কি কি উপকার করে দেখা যাক ।

**ভারত মাতা আমাদের গরু দেয়—————–

( ভারতে ১৫০ কোটি জনসংখ্যার ১১০ কোটি মানুষ  হিন্তু, যারা  গুমাংশ খাইনা, ভারত থেকে যদি গরু আমাদের দেশে না আসতো তাহলে, তাহলে  গুমাতার   মল্মুত্রে   ভারত মাতা নিজেই  ডুবে যেতে”

এত এব অতিরিক্ত গুমাতা বাংলাদেশ  এ প্রেরন করা হউক।

বিশেষ   দ্রষ্টব্য :  ভারতীয়রা গুমাংস খাই না, কিন্তু তাহাদের ক্যালসিয়াম  অভাব পুরুন করতে গুমাতার দুগ্ধ   “বনবিটা আর হরলিঙ্কস এর  মুড়োকে পুরে প্রতিনিয়ত  “ দুধের শক্তি বাড়াচ্ছে”

এই শক্তির  সর্বাধিক ব্যবহার করতে এবং নুতন প্রোটিন এর উৎসের খুঁজে  রাস্তাগাঁটে/যত্রতত্র  শুয়ার,কুত্তার  মত  তাদের নিজেদের মা বোনদের  প্রোটিন এ হানা দিচ্ছে।

আর বিশ্ব  মিডিয়ায়  ধর্ষণের মহামারী ডাইরিয়া   সৃষ্টি করেছে)

***ভারত মাতা আমাদের জনসংখা  নিয়ন্ত্রন করে——————

প্রতিদিন  সীমান্তে  হাজার হাজার নাম না জানা আমাদের ভাই  আর  ফেলানির  মত লক্ষ্ লক্ষ বোনের  নিষ্পাপ  জীবন ছিনিয়ে নিচ্ছে,

শুধু একে ৪৭ এর গুলি নয়, হত্যার পর লাশ নিয়ে উল্লাশ করা হয় যেন এই মাত্র কোন হিংস্র পশু/পাখি  শিকার করছে।

শুধু তাই নয় আমার  ভাই আর  বোনের    নীতর মৃত দেহে গুলির উপর বুটের কয়েক গাঁ কসিয়ে দিতে  দ্বিধা করে ।

শুধু তাই নয় আমার  ভাই আর  বোনের    নীতর মৃত দেহে গুলির উপর  কয়েকজন  উঠে নৃত্য – উল্লাসে ফেটে পড়ে ।

শুধু তাই নয়  আমার  ভাই আর  বোনের   নীতর মৃত দেহ গুলি সীমান্তের  কাঁটাতারে  মৃত কাক –চিলের মতো  জুলিয়ে  রেখে রোদে  শুকায় আর বৃষ্টিতে ভিজায়।

চিল  শুকুনের কয়েক দিনের জন্য উৎকৃষ্ট  মনুষ্য মাংস খাবার  ব্যবস্থা হয়।

দল বল নিয়ে  হাড় থেকে  মাংস চিলে চিলে খাবার প্রতিযোগিতা হয়………

এর পর হইত কঙ্কালটির জন্য শিয়াল কুকরে লড়াই চলে ।

আর এভাবে প্রতিনিয়ত  বিশ্ব মানবাধিকার সংস্থাকে  বুড়ো আঙ্গুল  দেখিয়ে  নির্দয়   অমানবিক  নির্বিচারে আমাদের  জনসংখ্যা কমিয়ে  চলেছে  বি এস এফ,আজ  হইত আমার বোন ফেলানি, কাল হইত নাম না জানা আমার স্বদেশী  অন্য কোন ভাই বা বোন ……………………………………।

*ভারত মাতা আমাদের পেঁয়াজ দেয়ঃ

হিন্দুরা পেঁয়াজ খাই না,( পেঁয়াজে  তাদের  অ্যালার্জি)

এই  ছাড়াও  হিন্দু ধর্মে পেঁয়াজ  খাওয়া  নিষেধ আছে………………।

তারা মনে করে পেঁয়াজ খেলে যৌন  শক্তি কমে যাই।

http://www.krishna.com  /why-no-  garlic-or-onions

http://www .swamina rayangadi.com/ help/f aq/religion-o nions-garlic.php

তাদের ধারনা পেঁয়াজ খেলে তাদের  পূজা আর্চনায় ব্যাঘাত হয়।

পেঁয়াজে   দেহের চামড়া  দূর গন্ধ হয়।

আরও অনেক কাহিনী…………………। 

কিন্তু  ভারতের আবহাওয়া এবং মাটি পেঁয়াজ  চাষের জন্য উপযুক্ত।

কিন্তু জনসংখ্যার বেশির ভাগ হিন্দু  হওয়াই, ভারত অনেক টা জোর করে পেঁয়াজ গছিয়ে দেয় আমাদের………………।

এ ছাড়াও  তাদের কিছু এই দেশি ভারতীয় দলাল  রয়েছে, যারা বিভিন্ন উৎসব উপলক্ষকে কেন্দ্র করে ২ মাস আগে থেকে পেঁয়াজ  এস্টক করে।( আমাদের দেশে উৎপাদিত পেঁয়াজ দিয়ে আমরা ভাল ভাবে সারা বছর  চলতে পারতাম)

আর বাজারে আমাদের দেশীয়  পেঁয়াজের গাড়তি  দেখা দিলে  সুযোগ  বোঝে  তাদের পেঁয়াজ  গুলা আমাদেরকে গছিয়ে দেয়।

* ভারতের  ফারাক্কা বাঁধের কারনে বাংলাদেশের  পরিবেশ বিপর্যয়

১৯৬১ সালে নির্মাণ শুরু হয় ফারাক্কা বাঁধের এবং শেষ হয় ১৯৭১ সালে। ফারাক্কা বাঁধের সংক্ষিপ্ত বিবরণ নিম্নরূপ:

১৯৭৬ সালে, ফারাক্কায় অবরুদ্ধ বাংলাদেশের জীবন রেখা পদ্মা নদীকে অবমুক্ত করার মহান অভিলক্ষ্যে মজলুম জননেতা মাওলানা ভাসানীর নেতৃত্বে সংগঠিত হয়েছিল ঐতিহাসিক ফারাক্কা মার্চ।

বাংলাদেশের ক্ষতি

শুষ্ক মৌসুমে গঙার পানি অপসারণের ফলে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়ে। এতে বাংলাদেশের কৃষি, মৎস, বনজ, শিল্প, নৌ পরিবহন, পানি সরবরাহ ইত্যাদি ক্ষেত্রে ব্যাপক লোকসানের সম্মুক্ষিন হতে হয়। প্রত্যক্ষ ভাবে বাংলাদেশের প্রায় ৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ক্ষতি হয়; যদি পরোক্ষ হিসাব করা হয়, তাহলে বাংলাদেশর ক্ষতির পরিমাণ অনেক গুণ ছাড়িয়ে যাবে। [৩]

নদীর নাব্যতা

ফারাক্কা পরবর্তি সময়ে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে গঙা নদীর (পদ্মা) প্রবাহে চরম বিপর্যয় ঘটে। প্রবাহ কমে যাওয়ায় নদীর নাব্যতা কমে যায়। ফলে প্রায় বাংলাদেশর বর্তমানে প্রায়ই বড় বন্যা সম্মুক্ষিন হতে হচ্ছে। বাংলাদেশর গড়াই নদী এখন সম্পূর্ণ ভাবে বিলুপ্ত। [৩]

মাটির লবনাক্ততা

ফারাক্কা বাঁধের ফলে বাংলাদেশের খুলনা অঞ্চলের মাটির লবনাক্ততা বৃদ্ধি পেয়েছে। বিজ্ঞানীরা খুলনার রুপসা নদীর পানিতে ৫৬৩.৭৫ মিলিগ্রাম/লিটার ক্লোরাইড আয়নের উপস্থিতি পেয়েছেন। তাছাড়া, মিঠা পানির সরবরাহ কমে যাওয়ায় শুষ্ক মৌসুমে লবন, ভূ-অভ্যন্তরস্থ পানিতে প্রবেশ করছে। [৩]

কৃষি

কৃষির অবস্থা সবচেয়ে ভয়াবহ। পানির স্তর অনেক নেমে যাওয়ার দক্ষিণ অঞ্চলের জি-কে সেচ প্রকল্প মারাত্বক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। সেচযন্ত্র গুলো হয়ত বন্ধ হয়ে আছে অথবা সেগুলোর উপর তার ক্ষমতার চাইতে বেশি চাপ পড়ছে। এই প্রকল্পের অন্তর্গত প্রায় ১২১,৪১০ হেক্টর জমি রয়েছে। মাটির আর্দ্রতা, লবনাক্ততা, মিঠা পানির অপ্রাপ্যতা কৃষির মারাত্বক ক্ষতি করেছে। [৩]

মাৎস

পানি অপসারণের ফলে পদ্মা ও এর শাখা-প্রশাখাগুলোর প্রবাহের ধরণ, পানি প্রবাহের বেগ, মোট দ্রবনীয় পদার্থ (Total dissolved solids) এবং লবনাক্ততার পরিবর্তন ঘটেছে। এই বিষয় গুলো মাছের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। গঙার পানির উপর অত্র এলকার প্রায় দুইশতেরও বেশি মাছের প্রজাতি ও ১৮ প্রজাতির চিংড়ী নির্ভর করে। ফারাক্কা বাঁধের জন্য মাছের সরবরাহ কমে যায় এবং কয়েক হাজার জেলে বেকার হয়ে পরে। [

নৌ-পরিবহন

শুষ্ক মৌসুমে বাংলাদেশের ৩২০ কিলোমিটারের বেশি নৌপথ নৌ-চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়ে। ফলশ্রুতিতে, কয়েক হাজার লোক বেকার হয়ে পড়ে, নৌ-পরিবহনের খরচ বেড়ে যায়।

ভূ-অভ্যন্তরে পানির স্তর

ভূ-অভ্যন্তরের পানির স্তর বেশিরভাগ জায়গায়ই ৩ মিটারের বেশি কমে গেছে। তাছাড়া বিভিন্ন দ্রবিভুত পদার্থের , ক্লোরাইড, সালফেট ইত্যাদির ঘনত্ব বেড়ে যাওয়ার কারণেও পানির স্তর কমছে। এর প্রভাব পড়ছে কৃষি, শিল্প, পানি সরবরাহ ইত্যাদির উপর। মানুষের বাধ্য হয়ে ১২০০ মিলিগ্রাম/লিটার দ্রবিভুত পদার্থ সম্পন্ন পানি পান করছে। যেখানে = World heath organization) ৫০০ মিলিগ্রাম/লিটারের কম দ্রবিভুত পদার্থ সম্পন্ন পানিকেই মানুষের পান করার জন্য উপযুক্ত বলে ঘোষণা করেছে।

http://bn.wikipedia.org/wiki/%E0%A6%AB%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%95%E0%A6%BE_%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%A7

এই রকম আরও হাজারটা  পয়েন্ট দিতে পারি যে  ভারত আমাদের  কতই উপকার করে………………

আমরা তিলে তিলে তার ঋণ শোধ করছি………………

সুশীল শিক্ষিত মানুষের জন্য এর চেয়ে বেশী পয়েন্ট দেওয়ার প্রয়োজন নেই…

এত কিছুর  পরেও  আমরা কোন মুখে ভারতকে  বন্ধু দেশ বলি????

যদি গায়ে   মানুষের গোশত  না থাকে, শুয়ের গোশত থাকে তাহলে  ভারতের হয়ে দালালি করবেন…………………

আশার কথা

আমাদের দেশের শিক্ষিত তরুনরা আজ  ইন্দিয়ার  এই সব  অত্যাচার এর  বিরদ্ধে  সচ্চচ্ছার হচ্ছে,

ইন্দিয়ার   সব অন্যায়  অত্যাচার  এর প্রতিবাদ করতে আমরা ঐক্যবদ্ধ হতে চেষ্টা করছি ।

বাংলাদেশের সব ভারত বিরোধী  ফেসবুক ব্যবহার কারিদের এক জায়গায় একত্র করার চেষ্টা করছি ২০ + ভারত বিরোধী পেজের ৫০ জনের ও বেশি অ্যাডমিন।

আমাদের একটাই লক্ষ্য  সব বাংলাদেশিদের,  ভারতের এই  সব অন্যায় নির্যাতন সম্পর্কে সচেতন করে তোলা……… 

এবং  বাংলাদেশে  প্রতিটি ক্ষেত্রে  ভারতের   নাক গোলানর  সুযোগ না দিয়ে  নিজেদের  দেশের  অবন্থরীন সমস্যা গুলো সমাধানের  চেষ্টা করা………………

এবং প্রতেক  বাংলাদেশিদের ফেসবুক ব্যবহারকারি  তরুনদের মাঝে   ভারত  বিদ্বেষী মনোভাব গড়ে তোলা………………।

রক্ত যদি কোন দেশের স্বাধীনতা এবং  সার্বভৌমত্ব এর মানদণ্ড হয়, তাহলে বাংলাদেশেই   স্বাধীনতা এবং  সার্বভৌমত্ব  এর  জন্য চেয়ে বেশী  দাম   দিয়েছে……………………

—————————————————————————————————————————————————————————

#  ইন্ডিয়া বিরোধী ৩ টি ফেসবুক পেজর অ্যাডমিন হতে পেরে গর্বিত……………………………।

www.facebook.cpm/rapendia

www.facebook.com/birbangali

www.facebook.com/rendiarjom

তথ্য সম্পাদন এবং লেখা – Ai.munna

Advertisements

student.living in Chittagong, Bangladesh. fan of technology, photography, and music.interested in cricket and travel.

Posted in টুকরো লেখা

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s

ব্লগ বিভাগ
ব্লগ সংকলন
%d bloggers like this: